বুয়েটের আন্দোলন ২ দিনের জন্য স্থগিত (BDNEWS 24)

 আন্দোলন নিয়ে ‘বিভ্রান্তি ও সন্দেহ’ দূর করতে দুই দিনের জন্য কর্মসূচি স্থগিত করেছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষকরা।
বুয়েট শিক্ষকদের গণপদত্যাগের হুমকির পেছনে ‘ভিন্ন উদ্দেশ্য’ রয়েছে- শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের এমন মন্তব্যের একদিন পর এ সিদ্ধান্ত এলো।

বুয়েট শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মুজিবর রহমান বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “আন্দোলন নিয়ে যে কোনো ধরনের বিভ্রান্তি ও সন্দেহ দূর করতেই আন্দোলন স্থগিতের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।”

তিনি জানান, দুই দিন বিরতি দিয়ে শনিবার আবারো তারা অবস্থান ধর্মঘটে বসবেন। রোববার বিকাল ৪টার মধ্যে দাবি পূরণ না হলে একযোগে পদত্যাগ করবেন।

via:http://www.bdnews24.com/bangla/details.php?cid=10&id=199733&hb=top

Advertisements

‘প্রয়োজনে বাইরে থেকে শিক্ষক আনা হবে’ (Prothom Alo online)

এস এম নজরুল ইসলাম

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) আন্দোলনরত শিক্ষকদের গণপদত্যাগের হুমকি প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এস এম নজরুল ইসলাম বলেছেন, ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কি বাইরের শিক্ষক দিয়ে চলে না? তাদের তো কোনো শিক্ষক নেই। প্রয়োজনে বাইরে থেকে শিক্ষক আনা হবে।’
আজ মঙ্গলবার দুপুরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বুয়েটের উপাচার্য এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, ‘নিয়ম অনুযায়ী কোনো গণপদত্যাগ হয় না। এটি প্রতারণা।’
গতকাল সোমবার বুয়েট শিক্ষক সমিতির জরুরি সভায় আন্দোলনরত শিক্ষকেরা গণপদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নেন। এ জন্য পদত্যাগপত্রে সই করেছেন তাঁরা। তবে সরকারকে আগামী রোববার বিকেল চারটা পর্যন্ত সময় দিয়ে তাঁরা বলেছেন, এর মধ্যে উপাচার্য ও সহ-উপাচার্যকে অপসারণ না করলে ওই দিনই তাঁরা পদত্যাগপত্র জমা দেবেন। বুয়েট শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম প্রথম আলো ডটকমকে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।
এর আগে ২৪ জন ডিন ও বিভাগীয় প্রধান নিজ নিজ পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। অবশ্য এখনো পদত্যাগপত্রগুলো গৃহীত হয়নি।

via- http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-07-17/news/274444

Teachers of BUET give 1 week to VC

Bangladesh University of Engineering and Techn...
Bangladesh University of Engineering and Technology (Photo credit: Wikipedia)

One week has been given to VC of BUET by teachers. Otherwise they will resign from their post.

From the last few months, teachers and students of Bangladesh top technical university, BUET, protesting against the VC and pro-VC for biasing their view over some people, notably on some teachers and chhatra league, the student wing of current govt. party, Bangladesh Awamy league.

However, VC still has not said about anything rather then he will only resign if president says him to resign. And he (and some newspaper, some teachers and chhatra league) are accusing protesting teachers have connection with Jammat-e-islami and Hizbur Tahrir.

The situation still is not ok.

N.B: Some students are saying VC should leave from his post, but campus should not start! 😀

“Save BUET” homepage

Here is the link of save buet home page.

I dont know when it was last updeated.

http://www.savebuet.com/

বুয়েট নিয়ে বৈঠক ডেকেছেন শিক্ষামন্ত্রী (BDNEWS 24)

বুয়েটের অচলাবস্থা নিরসনে বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক কয়েকজন উপাচার্য, ডিন ও বিভাগীয় প্রধানদের বৈঠকে ডেকেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।
read more from: http://www.bdnews24.com/bangla/details.php?cid=10&id=199443&hb=3

বুয়েট নিয়ে আপনাদের কাছে প্রশ্ন – শুভ্রস্বপ্ন from somewhereinblog

Please read the notes from BUETIANS, I will get more links and update as soon as i get.
পুরোটা দেশ ছেয়ে গেছে দুর্নীতিতে,আমরা বলিনা আমরা মহান।কিন্তু আমরা জানি আমাদের এখানে শিক্ষার পরিবেশ ছিল।আমরা জানি ছাত্রলীগ এখানে ত্রাস ছিলনা,যখন তখন তারা কারো হাত পা ভেঙ্গে দিতে সাহস পেত না।প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ দুটি পদে যারা আছে তারাই যখন অন্যায়ের পক্ষে থাকে,মিথ্যাচার করে,আমাদেরকে ছাত্র না মেনে ওই সব লীগের ফেল করা ছেলেদেরকে ছাত্র বলে,তাদের রেজাল্ট পরিবর্তন করে,তার বিরুদ্ধে না দাঁড়ানী ছাড়া আমাদের কি করার থাকে?
From: http://www.somewhereinblog.net/blog/shuvroswopno/29637321

Video

Architech Mobashsar Hossain about BUET crisis

From channel i , Bangladesh

Architech Mobashsar Hossain speaks candidly about BUET crisis. Mr.
Hossain is a genuine Awami league man by all means but in situations like this or elevated expressway project he could not resist being guided by his conscience. Our new generation partisan intellectuals who are finding ways to undermine BUET issue should take lead from Mr Hossain. Partisan agenda should not cloud conscience

উপাচার্যের অপসারণ চেয়ে রাষ্ট্রপতিকে স্মরকলিপি (BDNEWS 24)

উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের অপসারণ চেয়ে আচার্য ও রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

গত বুধবার থেকে লাগাতার অবস্থান ধর্মঘট চালিয়ে আসা শিক্ষক শিক্ষার্থীরা রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বুয়েটের প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে মৌন মিছিল নিয়ে বঙ্গভবনের উদ্দশে রওনা হন। বকশিবাজার, ঢাকা মেডিকেল, জাতীয় শহীদ মিনার হয়ে দোয়েল চত্বরে পৌঁছানোর পর পুলিশের বাধায় আটকে যায় হাজার খানেক শিক্ষার্থী ও শিক্ষকের এই মিছিল।

পরে বুয়েট শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বঙ্গভবনে গিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি দিয়ে আসেন।

এর আগে শিক্ষক সমিতির নির্বাহী সদস্য মো. এহসান দোয়েল চত্বরে দাঁড়িয়ে স্মারকলিপিটি পড়ে শোনান।

রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ্য করে এতে বলা হয়, “বর্তমান উপাচার্য ও উপ উপাচার্য দুই বছর আগে দায়িত্ব নেওয়ার পর এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়, যা সরকারকে ক্রমাগত বিব্রত করছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়কে অবনতির দিকে নিয়ে যাচ্ছে।

“আমরা আশা করি, আপনি (রাষ্ট্রপতি) চলমান সঙ্কট নিরসনকল্পে বর্তমান উপাচার্য ও উপাচার্যকে অবিলম্বে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে বুয়েটের দীর্ঘ ঐতিহ্য অনুসারে কেবল একজন উপাচার্য নিয়োগ করে এই প্রতিষ্ঠানের ঐতিহ্য সমুন্নত রাখার দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।”

বেলা পৌনে ১টার দিকে দোয়েল চত্বর থেকে আবার ক্যাম্পাসে ফিরে যান আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

from : http://www.bdnews24.com/bangla/details.php?cid=2&id=199426&hb=top

মিছিল নিয়ে বঙ্গভবনের দিকে বুয়েট পরিবার (Bangla News 24)

 হাজারো শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে দীর্ঘ মিছিল নিয়ে বঙ্গভবনের দিকে রওনা হয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) পরিবার।

বুয়েট উপাচার্য (ভিসি) এসএম নজরুল ইসলাম ও উপ-উপাচার্য এম হাবিবুর রহমানের পদত্যাগের দাবিতে তারা রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান বরাবর স্মারকলিপি দেবে।

রোববার পৌঁনে ১২টায় বুয়েট থেকে বের হওয়া মিছিলে অংশ নিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

মিছিলটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার হয়ে বঙ্গবভনের দিকে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষক সমিতির নেতারা।

উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে বুয়েটের শিক্ষক সমিতি এর আগে গত ৭ এপ্রিল থেকে ৫ মে পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করে। এরপর প্রধানমন্ত্রী শিক্ষকদের দাবি বিবেচনার আশ্বাস দিলে সমিতি আন্দোলন এক মাসের জন্য স্থগিত করে।

তবে দাবি পূরণ না হওয়ায় গত ৭ জুলাই থেকে প্রতিদিন এক ঘণ্টা (সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা) কর্মবিরতি পালন করছিলেন শিক্ষকরা। এরপর ১৪ জুলাই থেকে পূর্ণ কর্মবিরতির কর্মসূচির হুমকি দিলে বিশ্ববিদ্যালয় ছুটি ঘোষণা করেন উপাচার্য। তবে সেই ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে ক্যাম্পাসেই অবস্থান নিয়ে নেয় শিক্ষার্থীরা।

from: http://www.banglanews24.com/detailsnews.php?nssl=d5b927d232c87a4151c3d24b3f99be87&nttl=15072012126455